শুক্রবার, ২০ Jul ২০১৮, ০২:২৩ অপরাহ্ন

নোটিশ :
বাউফল নিউজ ওয়েবসাইটে আপনাদের স্বাগতম
বাউফল ও একটি জিজ্ঞাসা

বাউফল ও একটি জিজ্ঞাসা

রেজা্উল করিম বাউফল নিউজ ডেস্কঃ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হিসেবে আবেদন করতে হলে এখন আপনাকে চারটা ফার্স্ট ক্লাস থাকতে হবে। অর্থাৎ এসএসসি, এইচএসসি, অনার্স-মাস্টার্সে ফার্স্ট ক্লাস থাকতে হবে।
এই নিয়ে আবার সেদিন দেখলাম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন নামকরা প্রফেসর খুব গর্ব করে বলছিলেন
-আমদের বিশ্ববিদ্যালয়ে চারটা ফার্স্ট ক্লাস ছাড়া তো শিক্ষক হবার জন্য আবেদন’ই করা যায় না!
চিন্তা করে দেখুন অবস্থা!
– কেউ যদি স্কুলে একটু খারাপ রেজাল্ট করে, তাহলে সে আর বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক হতে পারবে না?
অথচ দেখুন বাংলাদেশের সেরা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা কিনা এই ব্যাপারটা নিয়ে নিজেদের উল্টো বড় ভাবছে কিংবা গর্ব করে বেড়াচ্ছে!
একটা ছেলে কিংবা মেয়ে স্কুল লেভেলে খারাপ রেজাল্ট করতেই পারে; এরপর যদি সে ব্যাচেলর এবং মাস্টার্স লেভেলে ভালো পড়াশুনা করে ভালো রেজাল্ট করে ফার্স্টও হয়ে বসে; এরপরও সে শিক্ষক হতে পারবে না! চিন্তা করে দেখুন অবস্থা! আর স্কুলের পড়াশুনার সঙ্গে কি বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়াশুনার সেই অর্থে কোন মিল আছে?
তাহলে স্কুলের রেজাল্ট কেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হবার জন্য বিবেচনায় আনতে হবে? যেই ছেলেটা এসএসসি কিংবা এইচএসসি পরিক্ষায় খানিক খারাপ রেজাল্ট নিয়েও একটা ভালো বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হলো; সে পড়াশুনা করার উৎসাহ পাবে কই থেকে তাহলে? এদেরকে এভাবে অনুৎসাহিত করার দায় তো এইসব শিক্ষকদেরই নিতে হবে।
আজকাল তো শুনতে পাচ্ছি, এমনকি ব্যাংক গুলোও নাকি চারটা ফার্স্ট ক্লাস চেয়ে বসে! কি অবাক কাণ্ড। একটা ছেলে কিংবা মেয়ে এসএসসি কিংবা এইচএসসি’তে কোন কারনে খারাপ করে বসলে, তাকে সেখনেই থেমে যেতে হবে? এ কেমন ব্যবস্থা আমরা চালু করে রেখেছি!
আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা কোথায় এই সব নিয়ে কথা বলবে, সমালোচনা করবে; উল্টো তারা নিজেরাই এইসব সিস্টেম চালু করে রেখছে এবং এই নিয়ে উল্টো তাদের মাঝে এক ধরনের গর্ববোধও কাজ করে!

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 Bauphalnews.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com