সোমবার, ২০ অগাস্ট ২০১৮, ১১:১৭ অপরাহ্ন

নোটিশ :
বাউফল নিউজ ওয়েবসাইটে আপনাদের স্বাগতম
ক্যানসার চিকিৎসায় তথ্যপ্রযুক্তি

ক্যানসার চিকিৎসায় তথ্যপ্রযুক্তি

মানুষের শরীরের আর সব রোগের চেয়ে ক্যানসার যতই জটিল হোক, তথ্যপ্রযুক্তির কল্যাণে ও চিকিৎসা গবেষণার অগ্রগতির কারণে তা এখন চিকিৎসার আয়ত্তে। কোনও কোনও ক্ষেত্রে ক্যানসার প্রতিরোধযোগ্য ও নিরাময়যোগ্য; উপরন্তু অন্যান্য জটিল অনেক রোগের চেয়ে ক্যানসার অনেক বেশি সহনশীল। গত এক দশকে তথ্য-প্রযুক্তির ব্যবহার এই রোগের চিকিৎসায় বিশ্বব্যাপী ব্যাপক এক দিগন্তের উন্মোচন করেছে। বিশেষ করে আমাদের মতো নিম্ন মধ্যম আয়ের (উন্নয়নশীল) দেশগুলোর জন্যে প্রযুক্তির সঠিক প্রয়োগ ক্যানসার চিকিৎসার খরচ অনেক বেশি কমিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছে, যা বর্তমানে এই রোগের চিকিৎসায় আশীর্বাদ হয়ে এসেছে।
চিকিৎসা বিজ্ঞানের সংজ্ঞা অনুযায়ী, ক্যানসার দলীয় বা সমবেত অনেক রোগের একটি জেনেরিক শব্দ, যা শরীরের যেকোনও অংশকে প্রভাবিত করতে পারে। দোষী টিউমার এর একটি বড় বহিঃপ্রকাশ। ক্যানসারের একটি নির্দিষ্ট বৈশিষ্ট্য হলো অস্বাভাবিক কোষগুলোর দ্রুত সৃষ্টি, যা তাদের স্বাভাবিক সীমারেখা অতিক্রম করে দ্রুত প্রসারিত হয় ও শরীরের অন্যান্য অংশের মধ্যে ছড়িয়ে পড়তে পারে। এই অঙ্গ পরবর্তী ক্ষতির প্রক্রিয়াকে বলা হয় মেটাস্ট্যাসিস, আর এ থেকেই মৃত্যুর প্রধান কারণ হয় ক্যানসার।
প্রকৃতিগতভাবেই মানবদেহ সর্বদা তার অক্ষত থাকার পথ খুঁজে ও নিজেকে নিরাপদ রাখতে সচেষ্ট থাকে। যখন শরীরের কোষগুলোয় কোনও অস্বাভাবিক প্রক্রিয়া শুরু হয় তখন সে আপনা থেকেই এটা জানিয়ে দেয়, যার প্রকাশ ঘটে দৃশ্যমান বা অগোচরের টিউমার, যার লক্ষণ নানাভাবে শরীরে ফুটে ওঠে। চিকিৎসা বিজ্ঞান এই লক্ষণগুলো সুস্পষ্টভাবে নির্ণয়ের গবেষণা করছে বহু বছর ধরে, যার অন্যতম সহায়ক হয়েছে তথ্য-প্রযুক্তি। কারণ, চিকিৎসা পদ্ধতির সামান্য ভুলের কারণে মানুষের শরীর বিদ্রোহ করে বসে এবং কোনও কোনও ক্ষেত্রে নিরপরাধ শরীর ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এই ক্ষতির মাত্রা উৎপাদনশীল টাকার অঙ্কে অনেক বেশি, যা আলাদাভাবে হিসাব করে একটি দেশের সার্বিক উন্নয়নের জন্যে কতখানি অন্তরায় তা জানতে পারলে এক ভয়াবহ চিত্র আমাদের সামনে এসে হাজির হবে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ২০১২ সালের হিসাবে (যা ২০১৫ সালে প্রকাশিত হয়েছে) বিশ্বব্যাপী প্রতি বছর শুধু নতুন ক্যানসার রোগীর সংখ্যাই প্রায় ১৪ মিলিয়ন, প্রায় ৯ মিলিয়ন মানুষ ক্যানসারে মারা যায় আর গড়ে ৩৩ মিলিয়ন মানুষ ক্যানসার রোগ নিয়ে বাস করছেন। এই মৃত্যুর হার এইচআইভি/এইডস, ম্যালেরিয়া ও যক্ষ্মা রোগের চেয়েও বেশি। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা আশঙ্কা প্রকাশ করছে যে মাত্র দুই দশকের হিসাবে শতকরা ৭৫ ভাগ বৃদ্ধি পেয়ে ২০৩০ সালের মধ্যে ক্যানসারে নতুন আক্রান্তের সংখ্যা বছরে ১৪ মিলিয়ন থেকে ছাড়িয়ে ২২ মিলিয়ন হবে, যা বিশ্ব উন্নয়নের জন্যে এক বড় হুমকি। কারণ, শুধুমাত্র ক্যানসারেই মৃত্যু হার বেড়ে দাঁড়াবে শতকরা ৪৫ ভাগে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অপর এক হিসাবে ২০১১ থেকে ২০২৫ সালের মধ্যে ক্যানসার-সহ অন্যান্য অসংক্রামক রোগে নিম্ন-মধ্যম আয়ের দেশগুলোর আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়াবে ৭ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গবেষণা তথ্যে জানা যায়, পুরুষদের মধ্যে ক্যানসারের পাঁচটি রোগ বেশি হচ্ছে- ফুসফুস, প্রোস্টেট, মলদ্বার সম্পর্কিত, পাকস্থলী ও লিভার ক্যানসার আর মহিলাদের মধ্যে স্তন, জরায়ু, ফুসফুস, মলদ্বার সম্পর্কিত ও পাকস্থলীর ক্যানসার বেশি পাওয়া যাচ্ছে। এই পাঁচটি ক্যানসারের প্রধান ঝুঁকির কারণ, যা প্রায় সকল ক্যানসারের এক-তৃতীয়াংশ, যেগুলো হলো- উচ্চ বডি মাস ইনডেক্স বা শরীরের উচ্চ ভর, কম ফল এবং শাকসবজি গ্রহণ, শারীরিক কার্যকলাপের অভাব, তামাক এবং অ্যালকোহল ব্যবহার। তামাকের ব্যবহারই সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ ঝুঁকি বা ফ্যাক্টর এবং বিশ্বব্যাপী সকল ক্যানসার মৃত্যুর শতকরা প্রায় ২০ ভাগই হলো ফুসফুসের। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এ-ও বলছে যে ক্যানসার আক্রান্তদের মধ্যে ফুসফুসের ক্যানসারে মৃত্যুর হারই বেশি, শতকরা ৭০ ভাগ।

তথ্য-প্রযুক্তির ক্রমবর্ধমান উন্নয়নের ফলে চিকিৎসা বিজ্ঞান এর সর্বাধিক সুযোগ নিতে তৎপর আছে। জাতিসংঘের ২০০৩ সালের জেনেভা ঘোষণাপত্রের আলোকে বিশ্বব্যাপী যে ১১টি অ্যাকশন লাইন দেশগুলো মেনে চলছে তার মধ্যে ৭নং-এ উল্লেখিত “জীবনের সকল স্তরে তথ্য-প্রযুক্তির সর্বাধিক ব্যবহার” শীর্ষক কর্মসূচির অন্যতম হলো “ই-হেলথ” কর্মসূচি। দূরসেবা কার্যক্রম নিয়ে চিকিৎসা বিজ্ঞান প্রচুর গবেষণা করছে ও অনেক ক্ষেত্রেই সফল হয়েছে। দেশে দেশে ইন্টারনেট সম্প্রসারণের ফলে মেডিক্যাল সফটওয়্যার ব্যবহার ও দূরনিয়ন্ত্রিত চিকিৎসা যন্ত্রাংশ সমন্বিত হয়ে অনেক জটিল রোগের চিকিৎসা করতে এখন সফল হচ্ছে।

অনেকেই জানেন, ক্যানসারের চিকিৎসায় অনেক ধাপ অনুসরণ করতে হয়। চিকিৎসা শুরুর আগে সবচেয়ে জরুরি এর সঠিক নির্ণয়। যে কয়টি ধাপ মূলত ক্যানসার চিকিৎসায় অনুসরণ করা হয় তার মধ্যে স্ক্রিনিং বা নির্ণয় কাজটি প্রাথমিক, সবচেয়ে জটিল ও গুরুত্বপূর্ণ। এক্ষেত্রে চিকিৎসক তার জ্ঞান, চিন্তা ও অভিজ্ঞতার সঙ্গে যুক্ত করেন তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহার করে পাওয়া ফলাফল। এসবের সমন্বয়ে চিকিৎসার পরিকল্পনা নেওয়া হয়। আর দেখা যায়, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহারের ফলাফল প্রধান নিয়ামক হয়ে ওঠে। পাঠকের বুঝার সুবিধার্থে উল্লেখ করছি, এই তথ্য-প্রযুক্তির ব্যবহার কিন্তু শুধুমাত্র যন্ত্রপাতির ব্যবহার নয়। যেমন ধরুন, একটি সফটওয়্যার একজন মানুষের প্রতিদিনের খাদ্যাভাস, হাঁটাচলা বা শারীরিক কার্যকলাপের তথ্য, রক্তচাপ, প্রাথমিক রোগশোকের বিবরণ, এমনকি তার ওজন, রক্তে শর্করার উপস্থিতির তথ্য, অতীতে চিকিৎসা নেওয়ার বিবরণ ইত্যাদি টুকে রাখে। এখন যদি কেউ শরীরে একটি অস্বাভাবিক টিউমার বা শরীরের আচরণগত পরিবর্তন দেখেন তাহলে তিনি অবশ্যই চিকিৎসকের কাছে যাবেন। চিকিৎসক সফটওয়ারের সব তথ্য মিলিয়ে দেখে ওই মানুষের অস্বাভাবিক শারীরিক পরিবর্তনের কারণ নির্ণয় করতে পারবেন এবং দেখা গেছে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এতে চিকিৎসক সফল হয়ে থাকেন। আমাদের দেশে এরকম মেডিক্যাল সফটওয়্যার ব্যবহার হয় না বলে আমরা নিজেদের স্বাস্থ্য তথ্য সম্পর্কে কিছুই জানি না। যখন ডাক্তারের শরণাপন্ন হই তখন ডাক্তার শুধু মুখের বিবরণ শুনে চিকিৎসা সেবার প্রয়োজনীয় পরীক্ষা ও পরামর্শ দিয়ে থাকেন। পরে অনেক ক্ষেত্রে আবার আমরা সেসব রিপোর্ট ও প্রেসক্রিপশন হারিয়ে ফেলি। যার কারণে আমাদের চিকিৎসা সেবা শুধু ব্যাহতই হয় না, পরবর্তী চিকিৎসা কাজে তাৎক্ষণিক বিবরণ শুনে ডাক্তার চিকিৎসা সেবা দিয়ে থাকেন। আর এতে কোনও কোনও ক্ষেত্রে পরম্পরা সংযোগ থাকে না বলে চিকিৎসায় ত্রুটি হয়, যা স্বাভাবিক। আর এতে অনেক ক্ষেত্রে আমরা ডাক্তার বা চিকিৎসা সেবা ব্যবস্থাকে দোষ দেই, যা সঠিক নয়।

বিশ্বের অনেক দেশেই এখন এরকম স্বাস্থ্য তথ্যের ব্যক্তিগত ভাণ্ডার তৈরি হয়েছে, যা চিকিৎসা সেবার জন্যে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ক্যানসার নিরূপণে এরকম স্বাস্থ্যভাণ্ডার বা ডেটাবেজ থাকা আমাদের দেশের জন্যে খুবই জরুরি। এসব তথ্য এখন কেন্দ্রীয় সার্ভারে সুরক্ষিত থাকলেও মোবাইল ফোনের অ্যাপ ব্যবহার করে যেকোনও সময়ে প্রাথমিক রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসা পরিকল্পনা করতেও সহজ হয়। তাছাড়া এসব তথ্য থাকলে, বিশেষ করে ক্যানসারের ধারাবাহিক চিকিৎসার নানা ধাপের তথ্য থাকলে এর চিকিৎসাও সহজতর হয়।

উন্নয়নশীল দেশগুলোতে “পয়েন্ট অব কেয়ার” বা চিকিৎসা সেবার ধাপগুলোর জন্যে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা গাইডলাইন তৈরি করেছে। পর্যবেক্ষণ করলে দেখা যায় সেগুলোর অনুসরণ করা আমাদের দেশের জন্যে খুবই প্রাসঙ্গিক। কারণ, শুরুতেই কোন ক্যানসার আক্রান্ত মানুষের বড় হাসপাতালে যাওয়ার কোনই দরকার পড়ে না। প্রাথমিক কেন্দ্রে একটি এক্স-রে বা আল্ট্রাসাউন্ড করে বা ন্যূনতম খরচে পরীক্ষা করে ক্যানসারের ধারণা পাওয়া সম্ভব, যা এখন পৃথিবীর সকল চিকিৎসা সেবায় একটি স্বীকৃত পদ্ধতি। আর এটা সম্ভব হয়েছে তথ্য-প্রযুক্তির ব্যবহারের মাধ্যমে রোগীর প্রাপ্ত ডেটা বা তথ্য বিশ্লেষণ করেই। আজকাল যেকোনও প্রান্তিক পর্যায়ে একটি এক্স-রে রিপোর্ট ও প্রাপ্ত স্বাস্থ্য তথ্য মিলিয়ে দেখে দূর থেকেই কোনও বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক প্রাথমিক পরামর্শ দিতে পারেন। যেমন ধরুন, একজন ধূমপায়ী প্রাপ্তবয়স্ক যিনি কিছুদিন যাবৎ কফ-কাশীতে ভুগছেন ও জ্বর-সহ স্বাভাবিক জীবনের কিছু পরিবর্তন লক্ষ্য করছেন। চিকিৎসক তাঁকে হয়তো বুকের এক্স-রে সহ কিছু পরীক্ষার পরে অ্যান্টিবায়োটিক দিয়েছেন কিন্তু উপসর্গ থেকে গেলে বা নিরাময়ের লক্ষণ না দেখে দ্বিতীয় ধাপে তাঁকে আরও নিরীক্ষার জন্যে পাঠাবেন। সেক্ষেত্রে সকল তথ্য সংরক্ষিত থাকা খুবই জরুরি। কারণ, এ ধরনের রোগী ফুসফুসের ক্যানসারের ঝুঁকিতে আছেন।

ক্যানসার আক্রান্ত হলেই কোনও মানুষ সাথে সাথে মারা যাবেন এমন ধারণা ভুল, যদি তাঁর রোগ সঠিকভাবে নিরূপিত না হয়ে থাকে। আজকাল তথ্য-প্রযুক্তির সুবাদে প্রাথমিক শনাক্তকরণের পরে পরবর্তী চিকিৎসা ধাপে যেমন সার্জারি, কেমোথেরাপি, রেডিওথেরাপি ইত্যাদি সকল ক্ষেত্রে তথ্য-প্রযুক্তির ব্যবহারের ফলে যথাসম্ভব সঠিক চিকিৎসা নিশ্চিত হয়েছে। ক্যানসার টিউমার সার্জারিতে আজকাল প্রযুক্তি ব্যবহার করে কেবলমাত্র ক্ষতিগ্রস্ত অংশ অপসারণ করা হয়। এমনকি কেমোথেরাপিতে ওষুধের মাত্রা কতখানি হবে তা-ও ওই রোগীর স্বাস্থ্য তথ্যের ওপর ভিত্তি করেই নির্ধারণ করা হয়। ক্ষতিগ্রস্ত কোষ যেন শরীরের অন্যান্য অংশে ছড়িয়ে পড়তে না পারে তার জন্যে ক্যানসার রোগীকে এখন লাইনাক (লিনিয়র এক্সিলিটর) নামের যন্ত্রের মাধ্যমে রেডিওথেরাপি সেবা দেয়া হয়। আজকাল এসব যন্ত্রপাতি সম্পূর্ণভাবে সফটওয়্যার দিয়ে পরিচালিত হয়, যার সুবিধা হলো শুধুমাত্র যে অংশে এই থেরাপি দেয়া দরকার তা দূর থেকে নিয়ন্ত্রণ করেই নির্ধারণ করা যায়।

ডিজিটাল বাংলাদেশে ক্যানসারের মতো চিকিৎসায় তথ্য-প্রযুক্তির ব্যবহার অতি গুরুত্বপূর্ণ। কিছু কিছু ক্ষেত্রে আমাদের দেশে উন্নতমানের যন্ত্রপাতি ব্যবহার করা হলেও সেসবের চিকিৎসা ব্যয়বহুল ও প্রশ্নের ঊর্ধ্বে নয়। আমাদের দেশের জন্যে প্রাথমিক রোগ নির্ণয়ের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা থাকা জরুরি। স্বাস্থ্য তথ্যভাণ্ডার এক্ষেত্রে আমাদের জন্যে অনেক বেশি সহায়ক ও সাশ্রয়ী হবে। আমাদের দেশে এরকম সফটওয়ার তৈরি করার সক্ষম জনশক্তি আছে। ক্যানসারের মতো রোগের চিকিৎসা যখন দেশে দেশে অনেকটাই আয়ত্তের মধ্যে এসেছে তখন আমাদের পিছিয়ে থাকার সুযোগ নেই। দেখা যায় বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই যখন আমাদের রোগ ধরা পড়ে তখন ক্ষতিকর কোষ অনেকটাই অনিয়ন্ত্রিত হয়ে পড়েছে ও চিকিৎসা সেবায় তার শুশ্রূষার সুযোগ তখন অনেক কমে আসে। বিশেষ করে আমাদের দেশের মহিলাদের ক্যানসার নিরূপণে প্রাথমিক চিকিৎসা কেন্দ্রে যেতে স্বাস্থ্য তথ্য সংরক্ষণ করা অতি জরুরি। নানা পর্যবেক্ষণ ও গবেষণায় দেখা গেছে, বাংলাদেশে মহিলাদের ক্যানসার হলে পরিবারের আর্থিক ক্ষতির বিবেচনা করা হয় বেশি, কিন্তু এর প্রভাব যে মানসিক স্বাস্থ্য, পারিবারিক ও সামাজিক জীবনে কতখানি বেশি তা আমরা চিন্তা করি না।

রেজা সেলিম, পরিচালক, আমাদের গ্রাম উন্নয়নের জন্যে তথ্য প্রযুক্তি প্রকল্প

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 Bauphalnews.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com